দিনাজপুরের খানসামায় গলায় ফাঁস দিয়ে যুবকের আত্মহত্যা


admin প্রকাশের সময় : এপ্রিল ৮, ২০২৩, ৬:৫৯ অপরাহ্ন /
দিনাজপুরের খানসামায় গলায় ফাঁস দিয়ে যুবকের আত্মহত্যা

স্টাফ রিপোর্টারঃ দিনাজপুরের খানসামা উপজেলায় গলায় ফাঁস দিয়ে হাবিবুল্লা ওরফে আলিফ উদ্দিন (২২) নামে এক যুবক আত্মহত্যা করেন। গত শুক্রবার (৭ এপ্রিল) সন্ধ্যায় উপজেলার ৩ নং আংগার পাড়া ইউনিয়নের ছাতিয়ানগড় গ্রামের কৈপাড়া এলাকায় নিহতের (নানা) আব্বাস আরেফিন এর বাড়িতে এ দুর্ঘটনাটি ঘটে। নিহত হাবিবুল্লাহ ওরফে আলিফ পার্শ্ববর্তী বীরগঞ্জ উপজেলার কল্যাণী গ্রামের হান্নানের ছেলে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নিহত হাবিবুল্লাহর বাবা হান্নান একজন মানসিক রোগী। তখন থেকেই হাবিবুল্লাহ নানা আব্বাস আরেফিনের বাড়িতেই তার পরিবার নিয়ে বসবাস করতো। হাবিবুল্লাহ গত কয়েক বছর থেকে ঢাকায় স্ত্রীকে নিয়ে গার্মেন্টসে চাকুরী করত। কয়েক দিন আগেই বাড়িতে আসে হাবিবুল্লাহ। পরিবার সুত্রে জানা যায়, গরুর গোশত খাবার নিয়ে ঘটনাটি ঘটে। হাবিবুল্লা ইফতার করার পর নানীকে বলে “মোক গোশত দিয়া ভাত দে” নানী বলে “গোশত তো নাই ভাই শেষ হয়ে গেছে”। এই কথা শুনে হাবিবুল্লাহ রাগ করে বাড়ি থেকে বের হয়ে খড়ি রাখার ঘরে গোলায় ফাঁস দিয়ে আত্নহত্যা করে। নানী ইফতারের পর খুঁজতে গেলে দেখতে পায় খড়ি ঘরে গলায় দড়ি দিয়ে ঝুলে আছে হাবিবুল্লাহ এক পর্যায়ে নানী চিৎকার করলে আশেপাশের মানুষ চলে আসে। পরে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দিলে ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে খানসামা থানার ওসি (তদন্ত) তাওহীদুল ইসলাম জানান, “খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে ঐ যুবকের ঝুলন্ত মরদেহ নিচে নামিয়েছে পুলিশ। নানীর কাছ থেকে গোশত না পেয়ে অভিমান করে গলায় রশি দিয়ে ফাঁস দিয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে”। তিনি আরও জানান, “মরদেহের সুরতহাল প্রতিবেদন হলেও পরিবারের দাবির প্রেক্ষিতে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান, ইউপি সদস্য, মহিলা সদস্যার সাথে আলোচনা পূর্বক লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে”। এ বিষয়ে থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে বলেও জানান তিনি।